মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

বর্ষার হাওড়

বর্ষায় নাও, হেমন্তে পাওঃ

বাংলাদেশ ষড়ঋতুর দেশ। কিন্তু হাওরে ঋতু মাত্র দু’টি। একটি বর্ষা। অন্যটি হেমন্ত। বছরের প্রায় পাঁচ-ছ’মাস এখানে বর্ষা থাকে। বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ থেকে শুরু হয়ে বর্ষা শেষ হয় আশ্বিন-কার্তিকে। এ সময় হাওর সাগরের রুপ ফিরে পায়। পানিতে একাকার হয়ে যায় সব মাঠ-ঘাট। জলবন্দি হয়ে পড়ে প্রতিটি গ্রাম, এমনকি প্রতিটি বাড়িও। তখন এক গ্রাম থেকে আরেক গ্রামেতো বটেই, এক বাড়ী থেকে আরেক বাড়িতে যেতেও নৌকা লাগে। যাতায়াত ব্যবস্থাটিও হয়ে ওঠে সহজ সাধ্য। কিন্তু বর্ষা বিদায় নিয়ে হেমন্ত এলেই ঘটে বিপত্তি। কারণ হাওরের অনেক এলাকায় তেমন রাস্তাঘাট নেই। এক স্থান থেকে আরেক স্থানে যেতে হয় পায়ে হেঁটে। অর্থাৎ দুই পা-ই তখন একমাত্র ভরসা। আর ফসলি জমির ফাঁক-ফোকর দিয়েই চলে গেছে হেঁটে চলার অনেক মেঠো পথ। দূর-দূরান্তের এসব পথ পাড়ি দিতে হয় সঙ্গে চিড়া-মুড়ী নিয়ে।

হাওরের জলাতংকঃ

আফাল- এর তান্ডবে হাওর জনপদের বহু গ্রাম বিলীন হয়ে গেছে, মুছে গেছে ,মানচিত্র থেকে। আফালের তান্ডব থেকে ঘরবাড়ি রক্ষার প্রস্ত্ততিও সেখানে কম নয়। প্রতিবছর বাড়ির চারপাশে বাঁশ-কাঠ দিয়ে এক ধরণের বাঁধ নির্মাণ করতে হয়। একেকটি বাঁধে খরচ পড়ে দু’তিন হাজার টাকা। যাদের এ সামর্থ্য থাকে না- তারাই বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই হাওরবাসীর আনন্দ-বেদনার সঙ্গে অনেকখানিই জড়িয়ে আছে সর্বনাশা এ ‘আফাল’-এর নাম। অন্যদিকে বন্যাও এ অঞ্চলের প্রায় নিত্যসঙ্গী। হাওরে দ’ধরনের বন্যা হয়। একটি অকাল (আগাম) বন্যা, অন্যটি বর্ষাকালীন বন্যা। বর্ষাকালীন বন্যা যতটা না ভয়াবহ, তার চেয়ে বেশী ভয়াবহ অকাল বন্যা। সাধারণত চৈত্র-বৈশাখ মাসে এ বন্যা হয়। এতে হাওরের মানুষের বেঁচে থাকার একমাত্র অবলম্বন বোরো ফসল পানিতে তলিয়ে যায়। আর একবার ফসল তলিয়ে গেলে কৃষকরা সহায় সম্বল হারিয়ে রীতিমতো নিঃস্ব হয়ে যান। বিগত কয়েক বছরের অকাল বন্যায় হাওরাঞ্চলের এমন হাজার হাজার কৃষক নিঃস্ব হয়ে গেছেন-যারা আজও সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারেননি। এদিকে বর্ষাকালীন বন্যাতো আছেই। বর্ষার সামান্য বৃষ্টি আর পাহাড়ি ঢল এলেই পানিতে একাকার হয়ে যায় বাড়িঘর। ঘরের সামনেই থাকে পানি আর পানি। রাতে একটু কান পাতলেই শোনা যায় ছলাৎ ছলাৎ ঢেউয়ের গর্জন। এছাড়াও খরা, শিলাবৃষ্টি, চিটায় ফসল হানিসহ নানা দুর্যোগের সংগে নিরন্তর সংগ্রাম করে বাঁচতে হয় হাওরবাসীর। তাদের জীবনসূচিও যেন রচিত হয় প্রকৃতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে।

 

জীবন ও জীবিকার সঙ্কটঃ

হাওরের মানুষের জীবন – জীবিকাও দারুণ দুর্বিষহ। এ অঞ্চলের মানুষের প্রধান পেশা কৃষি। কিন্তু সারা বছর কৃষি কাজ থাকে না। কারণ- একমাত্র বোরো ফসল ছাড়া হাওরে আর কোন ফসল হয় না। বছরের অগ্রাহায়ণ- পৌষ মাসে বোরো চাষাবাদ শুরু হয়। সে ফসল ঘরে ওঠে চৈত্র-বৈশাখে। এরপর বেকার হয়ে পড়েন হাজার হাজার কৃষক ও কৃষি শ্রমিক। ফলে জীবিকার প্রয়োজনে তারা বাধ্য হয়ে ছোটেন দাদনব্যবসায়ীদের কাছে। আবার কেউ কেউ অভিবাসী হয়ে কাজের সন্ধ্যানে চলে যান দুর- দূরান্তের বিভিন্ন জেলায়। হাওরাঞ্চলে আরেক শ্রেণীর শ্রমিক আছেন-যারা মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন। বর্ষার পাঁচ-ছয় মাস তারা হাওরে মাছ ধরার সুযোগ পান। কিন্তু বর্ষা শেষ হলে তারাও বেকার হয়ে পড়েন এবং দাদন মহাজনদের দ্বারস্থ হন। দাদন ব্যবসায়ীদের সেই চক্রে আজও ঘুরপাক খাচ্ছেন হাওরের বহু মানুষ। ব্যাংক এবং এনজিও ঋণ সেখানে অপ্রতুল। নেই ব্যবসা- বাণিজ্যের তেমন সুযোগও। ফলে কর্মসংস্থানের দারুন অভাব হাওর জনপদে।

 

অপার সম্ভাবনাঃ

চীনের বিখ্যাত পর্যটক হিউয়েন সাং এর মতো পর্যটকও হাওরের জলধারায় পা ধুয়েছেন। সুতরাং এলাকাটি যে পর্যটনের জন্য উৎকৃষ্ট স্থান হতে পারে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যকে কেন্দ্র করে গড়ে তোলা যেতে পারে সমুদ্র সৈকতের মতো পর্যটন স্পট। এজন্য দরকার কেবল ভাল রাস্তা আর হোটেল-মোটেল। হাওরের জীববৈচিত্র্যও আকর্ষণ করতে পারে পর্যটকদের। হতে পারে গবেষণার বিষয়। কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে হাওরের প্রাণবৈচিত্র্য আজ ধ্বংসের পথে। ইতিমধ্যে হারিয়ে গেছে অনেক জলজ উদ্ভিদ ও

প্রাণী। এছাড়াও আরও অফুরন্ত সম্ভাবনা ছড়িয়ে আছে হাওরে। এ জনপদে প্রচুর ধান ফলে। কিন্তু চাষাবাদ পদ্ধতি অনেকটাই সেকেলে। তাই আধুনিক কৃষি ব্যবস্থাও সেখানে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে পারে। মৎস্য সম্পদকে কেন্দ্র করে গড়ে তোলা যেতে পারে মৎস্য প্রক্রিয়াজাত কেন্দ্র। এছাড়া কোন কোন হাওর এলাকাকে মৎস্য অভয়ারণ্য ঘোষনা করে মাছের চাষ ও প্রজনন নিশ্চিত করা যেতে পারে।

বহু খাস জমি পতিত পড়ে আছে হাওর এলাকায়। এগুলো প্রকৃত ভূমিহীনদের মাঝে বন্টন করে ভূমিহীনদের সংখ্যা অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব। দিনে দিনে বেদখল হয়ে গেছে বহু বিল-ঝিল ও জলাভূমী। সেগুলো পুনরুদ্ধার করা গেলে হাওরে কান পেতে আর শ্যালু ইঞ্জিনের ভট ভট শব্দ শুনতে হবে না। প্রকৃতির জলাধারের পানি দিয়েই নিশ্চিত হবে সেচ ব্যবস্থা। মূলতঃ একটি সুষ্ঠু পরিকল্পনার ছকে আনলেই হাওর জনপদ হয়ে ওঠবে এক অপার সম্ভাবনাময় জনপদ।